২০ বছর পর আরিচা-কাজিরহাট নৌপথে ফেরি চলাচল শুরু

আরিচা–কাজিরহাট নৌপথে ফেরি সার্ভিস চালুর উদ্বোধন করেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। শনিবার সকালে আরিচা ঘাট এলাকায়

আরিচা–কাজিরহাট নৌপথে ফেরি সার্ভিস চালুর উদ্বোধন করেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। শনিবার সকালে আরিচা ঘাট এলাকায়

মানিকগঞ্জের আরিচা ও পাবনার কাজিরহাট নৌপথে দীর্ঘ ২০ বছর পর আবার ফেরি চলাচল শুরু হয়েছে। আজ শনিবার সকালে এই নৌপথে ফেরি সার্ভিসের উদ্বোধন করেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

সকালে আরিচা ঘাট এলাকায় উদ্বোধন অনুষ্ঠানে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, উত্তরবঙ্গের ১৬টি জেলার সঙ্গে আরিচা-কাজিরহাট নৌপথ যুক্ত ছিল। তবে বঙ্গবন্ধু সেতু হওয়ার পর থেকে আরিচা-কাজিরহাট নৌপথে ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এখন যানবাহন বেড়ে গেছে, মানুষের যোগাযোগের গতিও বেড়েছে। যমুনা সেতুর বিকল্প হিসেবে এই নৌপথে আবারও ফেরি সার্ভিস চালু করা হলো।

অনুষ্ঠানে মানিকগঞ্জ-১ আসনের সাংসদ নাঈমুর রহমান দুর্জয়, বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান কমডোর গোলাম সাদেক, বিআইডব্লিউটিসির চেয়ারম্যান সৈয়দ মো. তাজুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

নতুন করে এই নৌপথে ফেরি সার্ভিস দেখতে অনেকে আরিচা ঘাট এলাকায় ভিড় করে। বেলা ১১টার দিকে আরিচা ঘাট থেকে বেগম রোকেয়া নামের একটি ফেরি দিয়ে যানবাহন পারাপার শুরু হয়। ফেরিতে প্রতিমন্ত্রীসহ অন্যরা কাজীরহাট এলাকায় যান। এর আধা ঘণ্টা পর বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমান নামের একটি ফেরি বেশ কয়েকটি পণ্যবাহী ট্রাক নিয়ে আরিচা থেকে কাজীরহাটের উদ্দেশে ছেড়ে যায়।

বিআইডব্লিউটিসির আরিচা কার্যালয়ের উপমহাব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) জিল্লুর রহমান বলেন, প্রাথমিক অবস্থায় দুটি ফেরি দিয়ে এই নৌপথে যাত্রী ও যানবাহন পারাপার শুরু করা হয়েছে। যাত্রী ও যানবাহনের ওপর নির্ভর করে পরবর্তী সময়ে এখানে ফেরির সংখ্যা বাড়ানো হবে।

২০০১ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি যমুনা নদীতে নাব্যতা-সংকটের কারণে আরিচা থেকে পাটুরিয়ায় স্থানান্তর করা হয় ফেরিঘাট। এরপর থেকে দেশের অন্যতম নৌবন্দর আরিচায় ফেরি সার্ভিস বন্ধ হয়ে যায়। এতে এই এলাকায় যাত্রী ও মানুষজনের যাতায়াত কমে যাওয়ায় খাবারের দোকান, আবাসিক হোটেলসহ বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ড স্থবির হয়ে পড়ে।

নৌপথটি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় পাবনা, কুষ্টিয়া ও সিরাজগঞ্জের অধিকাংশ এলাকার মানুষ রাজধানী ঢাকায় যাতায়াতে ভোগান্তিতে পড়েন। অতিরিক্ত পথ ও ভাড়া দিয়ে তাদের যাতায়াত করতে হয়। এ ছাড়া পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ও বঙ্গবন্ধু সেতুতে অতিরিক্ত চাপ পড়ে যাত্রী ও যানবাহনের। এসব বিষয় বিবেচনা করে সম্প্রতি আরিচা-কাজিরহাট নৌপথে আবার ফেরি সার্ভিস চালু করার উদ্যোগ নেয় নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়।

তবে বাধা হয়ে দাঁড়ায় এই নৌপথের নাব্যতা-সংকট। যমুনা নদীর এই নৌপথে নতুন করে চ্যানেল তৈরি করতে নৌপথ খননের উদ্যোগ নেওয়া হয়। দুই প্রান্তে ঘাট সচল করতে প্রায় ১৪ কোটি টাকা খরচ হয়। ৩ ফেব্রুয়ারি পরীক্ষামূলকভাবে এই নৌপথে ফেরি চলাচল শুরু করে। এরপর আজ শনিবার আনুষ্ঠানিকভাবে ফেরি সার্ভিস উদ্বোধন করা হলো।