নাসায় চাকরি করতে চাইলে যা করবেন

নাসায় চাকরি করার জন্য বেশ যোগ্যতার প্রয়োজন
মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসায় নভোচারীসহ বেশ কয়েকটি পদে চাকরির জন্য প্রায়ই আবেদন চাওয়া হয়। অনেকেরই স্বপ্ন থাকতে পারে সেই সংস্থায় চাকরির। কীভাবে, কী কী যোগ্যতা থাকলে সেখানে চাকরির আবেদন করা যায়, তা অনেকেরই জানার আগ্রহ থাকে।

নাসায় চাকরি করার জন্য বেশ যোগ্যতার প্রয়োজন। কারণ, আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন পরিচালনা, কক্ষপথে স্যাটেলাইট পাঠানো, মহাকাশ থেকে আবহাওয়ার নজরদারি, সৌরজগতের বিভিন্ন গ্রহের তথ্য উদ্ঘাটনে বিভিন্ন মহাকাশ মিশন পরিচালনাসহ নানা ধরনের কাজ করে নাসা। চাঁদ ও মঙ্গলে বসবাসের সম্ভাবনা সম্পর্কেও করে গবেষণা। বিশ্বের গ্রহ, সৌরজগৎ এবং এর বাইরের জগতকে আরও ভালো করে বোঝার জন্য ক্রমাগত মিশন চালায় নাসা। যদি মহাকাশকে নিয়ে গবেষণা আরও এগিয়ে নেওয়ার জন্য আধুনিক প্রযুক্তির সহায়তায় কাজ করতে চান তাহলে নাসায় আপনার জন্য কাজের জায়গা রয়েছে।

মার্কিন ফেডারেল সরকারের অফিশিয়াল চাকরির ওয়েবসাইট ইউএস-এর সাইটে এ সংক্রান্ত বিস্তারিত আছে। আপনি আগ্রহী হলে প্রোফাইল তৈরি করে বা না করেও নাসার শূন্যপদগুলোর জন্য আবেদন করতে পারবেন। খণ্ডকালীন, অস্থায়ী, স্থায়ী, ইন্টার্নশিপ (intern.nasa.gov) এবং ফেলোশিপের সুযোগ আছে নাসায়।

বিমান চালনা বিদ্যা, মহাকাশ স্টেশন, সৌর প্রক্রিয়া, তথ্যপ্রযুক্তি, পৃথিবী ও মঙ্গল গ্রহের বিষয়গুলোতেও ভালো ধারণা থাকতে হয় চাকরিপ্রত্যাশীদের

বিমান চালনা বিদ্যা, মহাকাশ স্টেশন, সৌর প্রক্রিয়া, তথ্যপ্রযুক্তি, পৃথিবী ও মঙ্গল গ্রহের বিষয়গুলোতেও ভালো ধারণা থাকতে হয় চাকরিপ্রত্যাশীদের
ছবি: নাসার ওয়েবসাইট

যোগ্যতার মানদণ্ড

এই সংস্থায় চাকরির জন্য নিজেকে প্রমাণ করতে হয় নানা দিক থেকে। প্রাথমিকভাবে শিক্ষাগত যোগ্যতার মানদণ্ডে উত্তীর্ণ হতে হবে। আগ্রহী প্রার্থীকে বিজ্ঞান, প্রযুক্তি, প্রকৌশলী, গণিতে স্নাতকোত্তরের পাশাপাশি থাকতে হয় প্রয়োজনীয় কাজের অভিজ্ঞতা। প্রতিযোগিতামূলক এ ধরনের পরীক্ষায় দলীয় সমন্বয়, যোগাযোগ, ভাষা ও বাজেট সমন্বয়ে অধিক দক্ষ প্রার্থীরা এগিয়ে থাকেন। বিমান চালনা বিদ্যা, মহাকাশ স্টেশন, সৌর প্রক্রিয়া, তথ্যপ্রযুক্তি, পৃথিবী ও মঙ্গল গ্রহের বিষয়গুলোতেও ভালো ধারণা থাকতে হয় চাকরিপ্রত্যাশীদের। চাকরিপ্রত্যাশীদের যোগ্য থাকতে হয় শারীরিকভাবেও। চোখের দৃষ্টিশক্তি ভালো থাকার পাশাপাশি, রক্তচাপও স্বাভাবিক হতে হবে, যা কি না হতে হয়—১৪০/৯০। উচ্চতা হতে হবে ৫ ফুট ২ ইঞ্চি থেকে ৬ ফুট ৩ ইঞ্চি।

সাক্ষাৎকার

সাক্ষাৎকারের বিভিন্ন ধাপে প্রার্থীকে টিকে থাকার কঠিন লড়াইয়ে নামতে হয়। প্রার্থীকে নাসার বাছাই কমিটিকে সন্তুষ্ট করতে হবে। কারণ, এই দুর্লভ সুযোগ বিশ্বের হাতে গোনা কয়েকজনই পান। নাসার কোনো একটি পদের জন্য শতাধিক সমান যোগ্যতার প্রার্থী থাকেন। সবাইকে পেছনে ফেলে কাঙ্ক্ষিত চাকরিটি হাতিয়ে নিতে হলে যোগ্যতার পাশাপাশি ভাগ্যেরও সহায়তা দরকার। এমনও দেখা যায় যে ১০ থেকে ১২ জন লোক নিয়োগের জন্য ২০ হাজারের বেশি যোগ্য ব্যক্তি আবেদন করেছেন। সচরাচর ২০ হাজার জনের চাকরি পাওয়ার মতো সব যোগ্যতা থাকার পরও চাকরি পাবেন ১০ থেকে ১২ জনই। যেমন, ২০১৮ সালে ১৮ হাজার ৩০০ আবেদনের মধ্য থেকে বেছে নেওয়া হয় মাত্র ১২ জনকে।

নাসায় চাকরির সাক্ষাৎকারের বিভিন্ন ধাপে প্রার্থীকে টিকে থাকার কঠিন লড়াইয়ে নামতে হয়

নাসায় চাকরির সাক্ষাৎকারের বিভিন্ন ধাপে প্রার্থীকে টিকে থাকার কঠিন লড়াইয়ে নামতে হয়

সাক্ষাৎকারের পরের ধাপ

সাক্ষাৎকারের পরের ধাপে নির্বাচিত হওয়ার পরই নাসায় চাকরি হয়ে গেল—ধরে নেওয়ার কোনো কারণ নেই। কারণ, এরপরও বেশ কিছু ধাপ পেরোতে হবে। দুই বছরের কঠোর প্রশিক্ষণ ও মূল্যায়নে উত্তীর্ণ হতে হবে প্রার্থীকে। চার বছরের কলেজ ডিগ্রি অর্জনের জন্য যে ধরনের পরিশ্রম করতে হয়, এ দুই বছরে তার থেকে অনেক বেশি চাপ সহ্য করতে হয়। প্রশিক্ষণ নেওয়া দলের সবাইকে যেকোনো পরিস্থিতি সামলে নেওয়ার মতো যোগ্যতা দেখাতে হয়। এ জন্য পানিতে সাঁতরানোর অভিজ্ঞতাও থাকতে হয়। মহাশূন্যে যে ধরনের পরিবেশে কাটাতে হয়, তাদের আগে থেকেই সেই ধরনের পরিবেশের মুখোমুখি হতে হয়। জেট এয়ারক্রাফটে শূন্য মাধ্যাকর্ষণ পরিবেশের সঙ্গেও খাপ খাইয়ে নিতে হয় প্রশিক্ষণার্থীদের।

নভোচারীর কী কাজ

মহাকাশে গিয়ে একজন নভোচারী কী কাজ করবেন, কীভাবে করবেন, এ জন্য একজন নভোচারীর বিশেষ প্রশিক্ষণ শেষ করতে হয়। এগুলো শুরু হয় তাঁদের উৎক্ষেপণস্থলে পৌঁছানোর অনেক আগেই। কোনো নভোচারীকে মহাকাশ স্টেশনে ছয় মাসের ‘স্টিন্টে’র জন্য কমপক্ষে দুই থেকে তিন বছর অতিরিক্ত প্রশিক্ষণ নিতে হয়। কিন্তু মহাকাশে অবস্থান স্মরণীয় হলেও পৃথিবীতে এর জন্য অনেক কাজ করতে হয়। মহাকাশে প্রত্যেক নভোচারীর জন্য পৃথিবীতে এক হাজার মানুষকে প্রকৃতপক্ষে কাজ করতে হয়।
মহাকাশে প্রত্যেক নভোচারীকে বিশেষ কাজ করতে হয়। এ ক্ষেত্রে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালানো, গবেষণা করা এবং মহাকাশ যানের মেরামত করা। এ কাজেই তাঁদের বেশির ভাগ সময় ব্যয় হয়।